খাবার ও রেসিপি

শীতের সবজি গাজর যে কারণে জুস হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ

শীতকালের একদিকে যেমন ধুলা, শৈত্যপ্রবাহ, রুক্ষ ত্বক, চুল ও স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেয়, অন্য দিকে বাজারে ওঠে শীতের বিশেষ ফল ও প্রচুর শাকসবজি যা এই সময়ের সমস্যা মোকাবেলা করতে আমাদের শরীরকে শক্তি দেয়। শীতের খুবই উপকারী একটি সবজি হলো গাজর, যা খাওয়া যায় ভিন্ন ভন্ন রূপে। গাজরের হালুয়া এক কোথায় অতুলনীয়। গাজর ভাজি, তরকারি কিংবা সালাদেও অনন্য স্বাদ এনে দেয়।গাজর যেমন কোলেস্টেরল ও ব্লাড সুগার কমাতে কাজে আসে, তেমনি টাটকা গাজর শরীরকে অনেকটা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেয়। গাজর থেকে পুষ্টি পাওয়ার সর্বোত্তম সহজ উপায় হলো জুস পান করা। শীতকাল ছাড়া অন্য সময়ে যেহেতু টাটকা গাজর পাওয়া যায় না, তাই এই মৌসুমে সকলের নিয়মিত গাজর খাওয়া উচিত।

নিয়মিত গাজরের জুস পানের কিছু উপকারিতা:

১) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্দি করে:
প্রতিদিন এক গ্লাস গাজরের জুস পান করলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্দি পায়।কারণ গাজোরে আছে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন ও মিনারেল যেমন ভিটামিন বি ৬, ভিটামিন কে, ফসফরাস ও পটাসিয়াম। আমাদের শরীরকে ফ্রি র‍্যাডিক্যাল ড্যামেজের বিপক্ষে লড়তে এগুলো সাহায্য করে।

২) ত্বক সুন্দর করে:
শীতকালে ত্বকে দাগ, ছোপ ও শুষ্কতার সমস্যা বেড়ে যায় অনেকগুনে।এই সব সমস্যা অতি সহজেই দূর করতে পারে গাজরের জুস। গাজরের জুস থেকে পুষ্টি পাওয়া যায় খুব দ্রুত।আর তা ত্বকের কোষ সুস্থ ও সজীব রাখে এবং দাগ দূর করে ও উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনে।

৩) দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে
চোখ ভালো রাখতে সবচেয়ে ভালো খাবারটি হলো গাজর। এতে প্রচুর বেটা-ক্যারোটিন ও ভিটামিন এ থাকায় তা দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে।গাজরের জুস ভিটামিন এ এর ঘাড়তি ও খুব দ্রুত পূরণ করতে পারে। শুধু তাই নয়, গাজরের জুসে বিট, আমলকি ও আপেল যোগ করতে পারেন। এতে স্বাদ যেমন বাড়ে তেমনি বাড়তি উপকারিতা পাওয়া যাবে।

সূত্র: এনডিটিভি

Leave a Reply