আদা সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে

মস্তিষ্কের ওপর অদ্ভুত রকম প্রভাব ফেলতে পারে আদা

আপনি মনে করতে পারেন আপনি একজন ভালো মানুষ। আপনি সবসময় ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নেন। অস্বাভাবিক, উদ্ভট কোনো সিদ্ধান্ত আপনি নেন না। বিজ্ঞান কিন্তু বলছে অন্য কথা। আমাদের আবেগ, অনুভূতি, শারীরিক স্বাস্থ্য, অভ্যাস এমনকি খাবার এবং আমাদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। ফলে আমরা এমন সব সিদ্ধান্ত নেই যা আসলে স্বাভাবিক নয় মোটেই।

কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার গবেষকরা দেখেছেন, গবেষণায় অংশগ্রহণকারী মানুষদের আদা খাওয়ানো হলে তাদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা অস্বাভাবিকভাবে প্রভাবিত হয়। আমরা সাধারণত যেসব কাজ করতে অস্বস্তি বোধ করি, আদা খাওয়ার পর সেসব কাজ করতেই আপত্তি অনেকটা কমে যায়। এমনকি তাদের ঘৃণার অনুভুতিও কমে। গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয় পার্সোনালিটি অ্যান্ড সোশ্যাল ফিজিওলজি জার্নালে।

আরো পড়ুন ..

সবাইকে একটি জিনজার ক্যাপসুল বা একটি সুগার পিল দেওয়া হয়। প্রথম গবেষণাটি করা হয় ২৪২ জন মানুষের ওপর। তাদের প্রত্যেককে কিছু জঘন্য ছবি দেখানো হয়, যেমন পচা মাংসের ছবি থেকে শুরু করে টয়লেটে বমি করছে এমন ছবি। এরপর তাদের কাছে জিজ্ঞেস করা হয় প্রতিটি ছবি দেখে তাদের কতটা ঘৃণা হয়েছিল।

দ্বিতীয় গবেষণাটি করা হয় ৩০৬ মানুষের ওপর। এতে তাদেরকে কিছু কাজের নমুনা দেওয়া হয়, যেমন দূর সম্পর্কের ভাই-বোনের মাঝে বিয়ে হওয়া, বা মর্গে থাকা লাশের চোখে স্পর্শ করা। এসব কাজে তাদের কতটা অস্বস্তি বা ঘৃণা হয় তার তথ্য নেওয়া হয়।

তৃতীয় গবেষণাটি দ্বিতিয়টির মতোই ছিল, তাতে ৪৯৭ জন মানুষ অংশগ্রহণ করে। চতুর্থ গবেষণায় ৫০৪ জন মানুষ ছিলেন। তাদের কিছু কিছু কাজের নমুনা দেওয়া হয় ও তা ঠিক না বেঠিক, তার বিচার করতে বলা হয়। এমন কাজে মধ্যে ছিল, সহপাঠিকে অকারণে থাপ্পড় মারা, পরীক্ষায় নকল করা, বাবা-মায়ের সাথে কারণে তাদের শেষকৃত্যে না যাওয়া ইত্যাদি।

গবেষণায় দেখা যায়, যারা আদা দেওয়া ওষুধ খেয়েছিলেন তাদের ঘৃণার তীব্রতা কম হয় ও অনৈতিক কাজের জন্য অন্যকে তারা বিচারও করেন কম। তবে খুব বেশি অনৈতিক ও ঘৃণ্য কাজের প্রতি সবার অনুভূতি একই হয়। গবেষকরা ধারণা করেন, যেহেতু আদা খেলে বা আদা চা পান করলে বমি বমি ভাব কম হয়, একইভাবে ঘৃণার অনুভূতিটাও অনেকটা কমে আসে। মূলত আমাদের পেটে বমির অনুভূতি না থাকলে ঘৃণা কম দেখা যায়। কিন্তু সামাজিকভাবে যেসব জিনিসকে আমরা বরাবরই ঘৃণা করে এসেছি, তার ওপর আদার কোনো প্রভাব দেখা যায় না।